মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

খাল ও নদী

                                                                      হালদা নদী

হালদা নদী এই ইউনিয়নের সীমানা ঘেঁষে বয়ে চলা এশিয়ার অন্যতম নদীদের ১টি ......।

 

হালদা নদী সম্পর্কে ঃ

হালদা নদী

হালদা বাংলাদেশের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলের একটি নদী। পার্বত্য চট্টগ্রামের বাটনাতলী পাহাড় হতে উৎপন্ন হয়ে এটি ফটিকছড়ির মধ্য দিয়ে চট্টগ্রাম জেলায় প্রবেশ করেছে। এটি এর পর দক্ষিণ-পশ্চিমে ও পরে দক্ষিণে প্রবাহিত হয়ে ফটিকছড়ির বিবিরহাট, নাজিরহাট, সাত্তারঘাট, ও অন্যান্য অংশ, হাটহাজারী, রাউজান, এবং চট্টগ্রাম শহরের কোতোয়ালী থানার মধ্য দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে। এটি কালুরঘাটের নিকটে কর্ণফুলী নদীর সাথে মিলিত হয়েছে। এর মোট দৈর্ঘ্য ৮১ কিলোমিটার, যার মধ্যে ২৯ কিলোমিটার অংশ সারা বছর বড় নৌকা চলাচলের উপযোগী থাকে।

নামকরণ

হালদা খালের উৎপত্তি স্থল মানিকছড়ি উপজেলাবাটনাতলী ইউনিয়নের পাহাড়ী গ্রাম সালদা। সালদার পাহাড়ী র্ঝণা থেকে নেমে আসা ছড়া সালদা থেকে হালদা নামকরণ হয়। সালদা নামে বাংলাদেশে আরো একটি নদী আছে যেটি ভারতের ত্রিপুরা রাজ্য থেকে উৎপন্ন ব্রাহ্মনবাড়িয়া জেলার উপর দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে। 

উপনদী

হালদা নদীতে পতিত দুপাশের উপনদীগুলো প্রশস্ততার বিচারে সাধারণত নদীর পর্য্যায়ে পড়েনা। বেশিরভাগ ছড়া, খাল কিংবা ঝর্ণা জাতীয়। তবে মানিকছড়ি, ধুরুং এবং সর্তা যথেষ্ট প্রশস্ত। পূর্বদিক হতে যেসব খাল হালদার সাথে মিলিত হয়েছে তার উৎপত্তি পার্বত্য চট্টগ্রামের পাহাড়ে। পশ্চিম দিক হতে আসা খাল গুলোর উতপত্তি স্থল সীতাকুন্ড পাহাড়। দুই পাহাড়ের মাঝখানে হালদা নদী প্রবাহিত হয়েছে উত্তর দিক হতে দক্ষিণ দিকে। পার্বত্য চট্টগ্রামের পাহাড় থেকে উৎপন্ন খাল গুলো হচ্ছে মানিকছড়ি, ধুরুং, তেলপারই, সর্তা, কাগতিয়া এবং ডোমখালী খাল। সীতাকুন্ড পাহাড়ী রেঞ্জ হতে উৎপন্ন হওয়া খালগুলোর মাঝে আছে গজারিয়া,ফটিকছড়ি,হারুয়ালছড়ি, বারমাসিয়া, মন্দাকিনী, বোয়ালিয়া এবং পোড়া কপালী খাল।

মাছের ডিম ছাড়া

প্রতিবছর হালদা নদীতে একটি বিশেষ মূহুর্তে ও বিশেষ পরিবেশে রুই, কাতলা, মৃগেল, কালিবাউসকার্প জাতীয় মাতৃমাছ প্রচুর পরিমাণ ডিম ছাড়ে। ডিম ছাড়ার বিশেষ সময়কে তিথি বলা হয়ে থাকে। স্থানীয় জেলেরা ডিম ছাড়ার তিথির পূর্বেই নদীতে অবস্থান নেন এবং ডিম সংগ্রহ করেন। ডিম সংগ্রহ করে তারা বিভিন্ন বাণিজ্যিক হ্যাচারীতে উচ্চমূল্যে বিক্রী করেন।

গত শতকের পঞ্চাশ দশকে দেশের মোট মৎস চাহিদার ৭০ ভাগ পুরুন করতো হালদা নদীর পোনা। কিন্তু রাষ্ট্রের সুষ্ঠ পরিকল্পনা ও সঠিক পদক্ষেপের অভাব, মা-মাছ শিকার, নদীর বাঁক কাটাসহ বিভিন্ন কারণে হালদা নদীর ঐতিহ্য আজ ধ্বংসপ্রায়। বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, হালদা নদীর ৪টি বাঁক কেটে ফেলা, অপরিকল্পিতভাবে সুইচগেট নির্মাণ, মা-মাছ নিধন, হালদা সংলগ্ন এলাকায় অনিয়ন্ত্রিতভাবে শিল্প-কারখানা গড়ে উঠাই এ নদীতে মাছের প্রজনন কমে যাচ্ছে। ১৯৪৬ সালের হিসাব অনুযায়ী হালদা নদী ৪ হাজার কেজি ডিম দেয়। এখান থেকে ডিম আহরণ করা হয়েছে ১৯৯৭ সালে ৩শ কেজি, ২০০৫ সালে ১শ ৫০ কেজি, ২০০৭ সালে এর পরিমাণ বেড়ে ৩শ পঞ্চাশ কেজিতে উন্নতি হয়। মৎস বিশেষজ্ঞরা মনে করেন প্রতিটি ডিম প্রদানের উপযোগী মাছের ওজন পাঁচ কেজি থেকে এক মণ পর্যন্ত। হালদা নদীতে মাছের রেণু সংগ্রহ করার প্রধান মৌসুম হল বৈশাখ-জৈষ্ঠ্য মাসের অমাবশ্যা এবং পূর্ণিমার প্রবল বর্ষণ এবং মেঘের গর্জন মুহূর্তে। এ সময় মা-মাছ নদীতে ডিম ছাড়ে। তখন নাজিরহাট, সাত্তারঘাট, আজিমারঘাট, বৈদ্যেরহাট, রামদাশ মুন্সীরহাট প্রভৃতি পাশ্ববর্তী এলাকার নৌকা, জাল দিয়ে হালদা নদীর কুলে মাছের রেণু সংগ্রহের জন্য অপেক্ষা করে। মাছ ডিম ছাড়ার সঙ্গে সঙ্গে মশারির নেট (বিশেষভাবে তৈরি এক ধরনের জাল) দিয়ে মাছের ডিম নৌকায় তুলে নেয়। ডিমগুলো নৌকার ভিতরে মধ্যাংশে কাঠের তক্তা ও মাটি দিয়ে তৈরি ছোট কৃত্রিম পুকুরে রেখে দেয়। এ পুকুরে মিহি সুতার তৈরি জালের আবর্তন থাকে। ডিম ধরার পর পাশ্ববর্তী এলাকায় মাটির তৈরি এক ধরনের বিশেষ অগভীর কুয়ায় ডিম ছেড়ে দেয়া হয়। ডিম ফুটানোর জন্য ২/৩ ঘন্টা অন্তর নাড়াচাড়া করতে হয়। এভাবে ১৭/১৮ ঘন্টা পর ডিম থেকে রেণুগুলো জালের পানির নিচে চলে যায়। এ সময় রেণুর রঙ থাকে সাদা। এক পর্যায়ে মাছের ছোট রেণুগুলো ভিন্ন কুয়ায় ছেড়ে দেয়া হয়। নতুবা কুয়ার পানি পরিবর্তন করা হয়। রেণুগুলোর স্বাভাবিক বেড়ে উঠার জন্য এ প্রক্রিয়া অবলম্বন করেন। এক সপ্তাহের মধ্যে রেণুগুলো পরিপক্ক হয়ে উঠে। তখন বিভিন্ন অঞ্চল থেকে আসা মাছের বেপারীরা নগদমূল্যে মাছের পোনা কিনে নিয়ে যায়। তবে ডিম সংগ্রহকারীরা রেনু উৎপাদনের জন্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। বর্তমানে হালদা নদীর পানি থেকে যে সকল মাছের রেণু সংগ্রহ করা হয় তার মধ্যে ৯০ শতাংশ কাতলা, রুই ও মৃগেল ৯ শতাংশ, কালিবাউশ এবং অন্যান্য মাছের পরিমাণ ১ শতাংশ। ১৫/ থেকে ২০ কেজি ওজনের একটি কাতল মাছ একবারে ৪০ লক্ষ ডিম দিতে পারে। ১০ থেকে ১৫ কেজি ওজনের রুই মাছ ২০ লক্ষ ডিম দিতে পারে। হালদা নদীর মাছের প্রজনন ক্ষেত্রের সঙ্গে জড়িত এই ইউনিয়ন সহ  চট্টগ্রামের অসংখ্য নারী-পুরুষ জীবিকা নির্বাহ করছে।

 

ছবি



Share with :

Facebook Twitter